ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২০শে জুন, ২০১৯ ইং, ৬ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
basic-bank
শিরোনাম :

একজন মেডিক্যাল অফিসারের হাতে ছিলো আড়াইশ শয্যা বিশিষ্ট রাজবাড়ী  সদর হাস্পাতাল

রাজবাড়ীঃ ঈদ ছুটিতে রাজবাড়ী আধুনিককৃত ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট্য সদর হাস্পাতালে একজন মেডিক্যাল অফিসার দিয়ে চলেছে চিকিতস্যা ব্যাবস্থা । ঈদের ছুটির কারনে ৪ ই জুন থেকে ৬ই জুন তিন দিন একজন মেডিক্যাল অফিসারকে সামাল দিতে হয়েছে আড়াইশ শয্যা বিশিষ্ট্য সদর হাস্পাতালের রোগীদের । সদর হাস্পাতালের রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতে সার্বক্ষণিক একজন ডাক্তার কেই ছুটতে হয়েছে ইমারজেন্সি , ইনডোর সার্জারি মেডিসিন , গাইনী , শিশু ওয়ার্ড সহ সর্বত্র । ডাক্তার সেবিকা নার্স এর সংখ্যা ছিলো সীমিত ।

৭ই জুন সন্ধ্যা পৌনে সাতটার দিকে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় , ইমারজেন্সিতে একজন মেডিক্যাল অফিসার ডাঃ মনিরা গাইনী , শিশু ও দুর্ঘটনাজনিত কারনে আসা রোগী দেখছেন। রোগী বেশী আসায় তিনি প্রতিবেদকের সাথে কথা বলতে পারেন নি । রাজবাড়ী শ্রীপুর কাজী পাম্পের সামনে মটর সাইকেল এক্সিডেন্ট করা হোসেন নামে পিতা- সাত্তার- সাং আলীপুর নামে একটি মূমূরষো রোগী আসলে ডাক্তার তার চিকিতস্যা দিয়ে ঐ দিন প্রায় ৩৫ টা রোগী ভর্তি করেন  ।

মেডিসিন ও শিশু ওয়ার্ডে একজন সিনিয়র নার্স কনিকা রানী ৩ জন শিক্ষানবিশ নার্স নিয়ে দুইটি ওয়ার্ড এর রোগী  সামাল দিচ্ছেন । গাইনি ওয়ার্ডে রোগী সংখা ছিলো ৪৩ জন ও  মেডিসিন ওয়ার্ডে শিশু রোগীর সংখ্যা ছিলো মাত্র ২ জন ।

সার্জারি ওয়ার্ডে রোগী সংখা ছিলো ১৯ জন সেখানে একজন সিনিয়র নার্স দীপ্তি শাহা ও ২ জন শিক্ষানবিশ নার্স  ভর্তি রোগীদের সেবা দিচ্ছেন ।

রোগী ও তাদের স্বজনদের সাথে কথা হলে তারা জানান, দুইদিন আমাদের ওয়ার্ডে কোন ডাক্তার আসেনি। রোগীর স্বজন আলমগীর জানান, আমার স্ত্রী সন্তান সম্ভবা তার ডেলিভারি সময় ছিলো এ সপ্তাহে কিন্তু ঈদের ছুটি পরে যাওয়ায় কোন ডাক্তার নাই । যদি কোন সমস্যা হয় এ জন্য চিন্তিত আছি । কর্তব্যরত নার্স জানান খুব বেশি সমস্যা হলে আমরা আছি এবং ডাক্তার আছে তাদের খবর দেয়া হবে ভয়ের কোন কারন নাই । তবে আরো একজন ডাক্তার ইনডোরে থাকলে ভালো হতো বলে জানান রোগীর স্বজন ও স্থানীয়রা ।

এ বিষয়ে কথা হয় সদর হাস্পাতেলের তত্বাবধায়ক ডাঃ দীপক কুমারের সাথে , ডাক্তার সংকটের কথা স্বীকার করে  তিনি জানান ঈদের ছুটিতে আমাদের ইমারজেন্সিতে একজন করে মোট দুই জন মেডিক্যাল অফিসার ছিলো। জরুরী প্রয়োজনে তিন জন স্বাস্থ্য কর্মকর্তা দিনের বেলায় ছিলো । আগামীকাল থেকে সাধারণ ডিউটি চলবে। তবে রোগী সংখ্যা কম আছে এ জন্য চিকিতস্যা সেবায় তেমন সমস্যা হচ্ছে না ।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ