ঢাকা মঙ্গলবার, ২৩শে জুলাই, ২০১৯ ইং, ৮ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
basic-bank
শিরোনাম :
«» লামা উপজেলাধীন ফাইতং ইউনিয়নের  ইটভাটা মালিকদের অবৈধ পাহাড়  কাটা  «» চমেক হাসপাতালের আগুন এখন নিয়ন্ত্রনেঃ ক্ষয়ক্ষতি লক্ষাধিক টাকা «» পলাশবাড়ীতে অজ্ঞান পার্টির ৪ সদস্য গ্রেফতার,সিএনজি ও মোবাইল উদ্ধার «» গাইবান্ধা থেকে বন্যার পানি কমছে না «» পলাশবাড়ীর হাট-বাজারে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমুল্য বৃদ্ধি «» ডোমারে বর্যার কবিতা পাঠ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত «» চট্টগ্রামের পতেঙ্গা লালদিয়া চরের উচ্ছেদকৃত মানুষের আহাজারীতে কাঁপছে আকাশ-বাতাস «» চট্টগ্রামের অক্সিজেনে চসিক’র অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান «» র‌্যাব-৮ মাদারীপুর এর অভিযানে ১২ হাজার পাঁচশত পিস ইয়াবা উদ্ধার এবং ট্রাকসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক  «» চিরিরবন্দরে স্ত্রীকে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে হত্যার অভিযোগ ঘাতক স্বামী আটক

তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ৩০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত প্রবল ভাঙ্গঁন আদিতমারীর মহিষখোঁচায়

বদিয়ার রহমান, লালমনিরহাট : উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢল আর অব্যহত ভারী বর্ষনে তিস্তা নদীর পানি ৩০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। অপর দিকে লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার মহিষখোঁচা ইউনিয়নের চন্ডিমারী ১নং স্পার বাঁধ, কুটিরপাড় বালুর স্পার বাঁধ ও গোবর্ধন এর ২নং স্পার বাঁধের মধ্য দিয়ে প্রবল স্রোতে প্রবল ভাঙ্গঁন দেখা দিয়েছে। সেখানকার স্থানীয়দের মাঝে আতংক বিরাজ করছে। তিস্তার পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় উত্তরের জেলা ডিমলা ও জলঢাকা উপজেলার প্রায় ২০টি গ্রাম ও লালমনিরহাটের হাতিবান্ধা উপজেলার সিন্দুর্ণা, সানিয়াজানসহ কয়েকটি এলাকায় প্রায় ১৫টি গ্রাম এবং আদিতমারী উপজেলার মহিষখোঁচা ইউনিয়নে প্রায় ৭টি গ্রাম প্রবল স্রোতে প্লাবিত হয়েছে। প্রবল স্রোতে ভাঙ্গঁনের প্রবল দেখা দিয়েছে তিস্তা নদীর তীরবর্তি চরাঞ্চলের এলাকাগুলো। এতে পানির তোড় ছুটে চলেছে নদীর তীরবর্তি গ্রামগুলোতে। পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) ডালিয়া বিভাগের বন্যা পূর্বাভাস ও সর্তকীকরন কেন্দ্র সুত্রে জানাগেছে, লালমনিরহাট তিস্তা ব্যারেজ পয়েন্টে বৃহস্পতিবার ১১ জুলাই সকাল ১০টায় বিপদসীমার ৩ সেন্টিমিটার কম থাকলেও দুপুর দেড়টার দিকে ৮ সেন্টিমিটার ,বিকেল ৪টার দিকে ২৫ সেন্টিমিটরি এবয় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বেড়ে ৩০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে প্রায় সহস্রাধিক পরিবার বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। এদিকে লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার মহিষখোঁচা ইউনিয়নে ভাঙ্গঁন কবলিত এলাকা পরিদর্শনে যাওয়া আদিতমারী উপজেলা চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েস ফারুখ জানান, প্রবল স্রোতে ওই সব এলাকার স্পাধ বাঁধের দিকে ভাঙ্গঁন দেখা দিয়েছে। আগামী বর্ষার আগে নতুন করে বাধঁ নির্মাণ করা না হলে এমতাবস্থায় ভাঙ্গঁন অব্যহত থাকবে। মহিষখোঁচা ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ মোসাদ্দেক হোসেন চৌধুরী জানান, তিস্তার পানির প্রবল স্রোতে পানিবন্দি কবলিত এলাকা ও ভাঙ্গঁন কবলিত এলাকাগুলোর বসবাসকারীদের নিরাপদ আশ্রয় নেয়ার কথা বলা হয়েছে। এব্যাপারে লালমনিরহাট পাউবোর উর্দ্ধতন কর্মকর্তা বজলার রহমান জানান, ভাঙ্গঁন কবলিত এলাকাগুলো ঘুড়ে দেখা হয়েছে আগামীতে বাধঁ নির্মানের জন্য বরাদ্দ চাওয়া হবে। বরাদ্দ আসলে নির্মাণ কাজ করা হবে। পাউবো ডালিয়া বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো; আব্দুল­াহ আল মামুন বলেন, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে তিস্তা নদীর পানি বাড়তে থাকে। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ৩০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ