ঢাকা বুধবার, ২৪শে জুলাই, ২০১৯ ইং, ৯ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
basic-bank
শিরোনাম :
«» ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সার্টিফিকেট জালিয়াতি মামলায় গ্রেফতার দুই «» ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের পর এবার ডাকবাংলায় ২৫ টাকার ঔষুধ ৬শ টাকায় বিক্রি, জরিমানা আদায় «» ঝিনাইদহের বৈডাঙ্গায় গুজবে কান না দেওয়ার জন্য ঝিনাইদহ থানা পুলিশের উদ্যোগে গণ-সচেতনামূলক সভা অনুষ্ঠিত «» ঝিনাইদহে পুকুর ডোবায় নেই পানি, পানির অভাবে পাট জাগ দিতে মহাবিপাকে পাটচাষীরা «» ঝিনাইদহে বর্ণাঢ্য আয়োজনে কসাসের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত «» ঝিনাইদহের পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামানের নির্দেশে ও শৈলকুপা থানার অফিসার ইনচার্জ বজলুর রহমানের নেতৃত্বে গুজব বন্ধে শৈলকুপায় পুলিশের প্রচারাভিযান শুরু «» দিনাজপুরে পাবলিক সার্ভি দিবসে বর্ণাঢ্য র‌্যালী অনুষ্ঠিত «» মাছের চাষে ভরপুর জেলা মোদের দিনাজপুর «» ফুলবাড়ীতে পাবলিক সার্ভিস দিবস পালনে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত «» ফুলবাড়ীতে টিউশনির অর্থে শিক্ষার্থীকে পাঠ্যবই প্রদান

বান্দরবানে বন্যা পরিস্থিতি অবনতি,তলিয়ে গেছে নিম্ম এলাকা,এখনোও বন্ধ রয়েছে বান্দরবানের সাথে সারাদেশের সড়ক যোগাযোগ

রিমন পালিত,বান্দরবান : গত এক সাপ্তাহ ধরে ভারী বর্ষণ এখনো অব্যাহত রয়েছে বান্দরবানে। টানা এই বর্ষণের ফলে পাহাড়ী অঞ্চলের মানুষের জনজীবন বিপন্ন হয়ে পড়েছে।বান্দরবান-চট্রগ্রাম সড়কের সাতকানিয়া বাজালিয়া এলাকা প্রায় আধা কিলোমিটার সড়ক তলিয়ে যাওয়ায় বান্দরবানের সাথে সারাদেশের সঙ্গে যোগাযোগ এখনো বিচ্ছিন্ন রয়েছে।সড়কে যানবাহন আটকা পড়ে চরম ভোগান্তিতে পড়ে যাত্রীরা।নৌকায় পারাপার হয়ে বান্দরবান ও চট্টগ্রামগামী লোকজন চলাচল করেছেন।অনেকে চলছেন ভ্যান যোগে।এখনো বান্দরবানে গুটি গুটি বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে।বান্দরবান-রাঙ্গামাটি সড়ক পানিতে তলিয়ে যাওয়ায়-রাঙ্গামাটির সাথে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

এদিকে টানা বর্ষণ ও সাঙ্গু নদীতে উজানের পানি বৃদ্ধি পেয়ে জেলা শহরের আর্মিপাড়া,ইসলামপুর,উজানীপাড়া, শেরে বাংলা নগরে,কাশেম পাড়া,বাস ষ্টেশন এলাকা,হাফেজ ঘোনাসহ বিভিন্ন এলাকা পানিতে তলিয়ে গেছে। মাতামুহুরী নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে লামা উপজেলার বেশ কিছু এলাকা পানির নিছে তলিয়ে গেছে।আলীকদম সড়কের বিভিন্ন জায়গা পানিতে তলিয়ে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়েগেছে।এছাড়াও বিভিন্ন স্থানে পাহাড় ধনে এবং পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ায় জেলার সদরের সাথে রুমা,রোয়াংছড়ি,থানচি উপজেলার সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

বান্দরবান জেলা প্রশাসক মো.দাউদুল ইসলাম জানান,বন্যা ও দূর্যোগে যেকোন ঝুকি মোকাবিলার জন্য জেলা ও উপজেলা প্রশাসনসহ সার্বক্ষণিক কাজ করছে।এছাড়াও পাহাড় ধসের ঝুঁকিতে বসবাসকারীদের নিরাপদ স্থানে সরে যেতে মাইকিং অব্যাহত রয়েছে। আশ্রয় নেওয়া মানুষের মাঝে ত্রাণ তৎপরতা চালানো হচ্ছে।পরিস্থিতি মোকাবেলায় জেলা প্রশাসন নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খুলেছে। পুরো জেলায় আশ্রয় কেন্দ্র খুলেছে ১২৬ টি। আশ্রয় নেয়া মানুষদের জন্য শুকনো খাবার বিতরণ করছে প্রশাসনসহ বিভিন্ন প্রতিষ্টান।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ