ঢাকা বুধবার, ২৪শে জুলাই, ২০১৯ ইং, ৯ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
basic-bank
শিরোনাম :
«» ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সার্টিফিকেট জালিয়াতি মামলায় গ্রেফতার দুই «» ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের পর এবার ডাকবাংলায় ২৫ টাকার ঔষুধ ৬শ টাকায় বিক্রি, জরিমানা আদায় «» ঝিনাইদহের বৈডাঙ্গায় গুজবে কান না দেওয়ার জন্য ঝিনাইদহ থানা পুলিশের উদ্যোগে গণ-সচেতনামূলক সভা অনুষ্ঠিত «» ঝিনাইদহে পুকুর ডোবায় নেই পানি, পানির অভাবে পাট জাগ দিতে মহাবিপাকে পাটচাষীরা «» ঝিনাইদহে বর্ণাঢ্য আয়োজনে কসাসের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত «» ঝিনাইদহের পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামানের নির্দেশে ও শৈলকুপা থানার অফিসার ইনচার্জ বজলুর রহমানের নেতৃত্বে গুজব বন্ধে শৈলকুপায় পুলিশের প্রচারাভিযান শুরু «» দিনাজপুরে পাবলিক সার্ভি দিবসে বর্ণাঢ্য র‌্যালী অনুষ্ঠিত «» মাছের চাষে ভরপুর জেলা মোদের দিনাজপুর «» ফুলবাড়ীতে পাবলিক সার্ভিস দিবস পালনে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত «» ফুলবাড়ীতে টিউশনির অর্থে শিক্ষার্থীকে পাঠ্যবই প্রদান

যশোরে সিজারের সময় ব্লেডে মাথা কাটল নবজাতকের

যশোর শহরের কিংস হসপিটালে এবার এক প্রসূতির সিজারের সময় ব্লেডের আঘাতে গর্ভের সন্তানের মাথা কেটে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিষয়টি গোপন রাখার জন্য নবজাতককে কোন চিকিৎসাও করতে দেয়া হয়নি বলে অভিযোগ স্বজনদের। অবস্থার অবনতি হওয়ায় গতকাল সকালে নবজাতককে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তির পর বিষয়টি ফাঁস হয়।ভুক্তভোগী নবজাতকটি সদর উপজেলার রামনগর ইউনিয়নের সতিঘাটা পান্থাপাড়া গ্রামের ইকরাম হোসেন ও নাজনীন নাহার পলি দম্পতির।

শিশুর বাবা ইকরাম জানান, তার স্ত্রী অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার পর যশোর সদর হাসপাতালে থেকে চিকিৎসাসেবা নিচ্ছিলেন। ১০ জুলাই প্রসব ব্যথা উঠলে তাকে কিংস হসপিটালে নেয়া হয়। সেখানে ডা. আতিকুর রহমান রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করে দ্রুত সিজার করার পরামর্শ দেন।ইকরাম হোসেন অভিযোগ করেন, ভর্তির পরপরই কোন রকম পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়া ডা. আতিকুর রহমান তার স্ত্রীর সিজারিয়ান অস্ত্রোপচার করেন। নবজাতককে বাইরে আনার পর দেখা যায় মাথা দিয়ে রক্ত ঝরছে। তখন বিষয়টি জানানো হলে ডা. আতিকুর রহমান খান তাদের বলেন, ‘মাথায় হালকা নখের চোট লেগেছে। সমস্যা নেই, ঠিক হয়ে যাবে।’ এরপর বাচ্চাকে কোন ডাক্তার দেখাতে দেয়া হয়নি। বারবার বলা হয়েছে, ‘বেশি বেশি বুকের দুধ খাওয়ান। দুশ্চিন্তার কোন কারণ নেই।তিনি বলেন, ‘গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে আমার শিশু সন্তান দুধ খাওয়া বন্ধ করে দেয়। শুধু কান্নাকাটি করতে থাকে। গতকাল সকালে অবস্থার অবনতি ঘটে। পরে তাকে কিংস হাসপাতাল থেকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আকরাম হোসেন অভিযোগ করেন, পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই তড়িঘড়ি করে অস্ত্রোপচার করার কারণে ডা. আতিকুর রহমান গর্ভের সন্তানের মাথায় ব্লেড দিয়ে আঘাত করেছেন।এ ব্যাপারে যশোর হাসপাতালে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক কাজল মল্লিক বলেন, ‘শিশুটিকে মাথাকাটা অবস্থায় এখানে আনা হয়েছে। কীভাবে তার মাথা কেটেছে ভর্তির সময় তা শোনা হয়নি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ডা. আতিকুর রহমান খানের কোনো বিভাগের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের ডিগ্রি নেই। তিনি একজন এমবিবিএস চিকিৎসক। তিনি যশোর জেনারেল হাসপাতালে মেডিকেল অফিসার পদে কর্মরত ছিলেন। পরে যশোরের ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন হিসেবে যোগদান করেন। এই পদ থেকেই তিনি অবসরে যান। বর্তমানে কিংস হসপিটালে গাইনি ও সার্জারি বিভাগের রোগীদের অস্ত্রোপচার করেন। আবার অস্ত্রোপচারের আগে তিনি নিজেই নিয়ম না মেনে রোগীকে অজ্ঞান করেন এ বিষয়ে ডা. আতিকুর রহমান খান বলেন, ‘রোগীর পানির পরিমাণ একেবারেই কম ছিল। তাই তড়িঘড়ি করে অস্ত্রোপচার করা হয়েছে। এ সময় ব্লেডের আঘাতে আনুমানিক তিন মিলিমিটার লম্বায় ও আধা মিলিমিটার গভীরে ক্ষত হয়েছে। সামান্য বিষয়টিকে বড় করা হচ্ছে।

যশোরের সিভিল সার্জন ডা. দিলীপ কুমার রায় বলেন, ‘সিজারিয়ান অস্ত্রোপচারের সময় নবজাতকের মাথা কেটে যাওয়ার ঘটনাটি শুনেছি। রোগীর স্বজনরা লিখিত অভিযোগ করলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ