ঢাকা শুক্রবার, ১৯শে জুলাই, ২০১৯ ইং, ৪ঠা শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
basic-bank
শিরোনাম :
«» নওগাঁ’র পাহাড়পুরে ল্যাট্রিনের সেফটি ট্যাংকিতে নেমে এক যুবকের মৃত্যু — আহত দুই «» নওগাঁর মান্দায় বানভাসী মানুষের মাঝে ত্রান সামগ্রী বিতরণ «» এবার ঝিনাইদহের শৈলকুপা  ছাত্রীকে ধর্ষণ, থানায় মামলা «» হরিণাকুন্ডুর কাপাশাহাটিয়া ইউনিয়নে উপ-নির্বাচনে নৌকা মার্কার পক্ষে পথসভা «» খুলনার সাফল্যে গাঁথা নারী ইউএনও চিরিরবন্দরের কন্যা শাহনাজ বেগম «» রূপসায় সেনের বাজার স্ট্যান্ডে দু’গ্রæপের সংঘর্ষে আহত ৭ «» দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী সফরসঙ্গী আবু জাফর রাজু ড়া «» লাইনচ্যুত হয়ে প্রায় ৫০০ মিটার হেছড়ে স্টেশন প্লাটফর্মে গিয়ে পৌছায় «» নেত্রকোনায় প্রকাশ্য দিবালোকে শিশুর গলা কাটা মস্তক নিয়ে ঘুরে বেড়ানো ঘটনায় শিশু হন্তারক গণপিটুনিতে নিহত «» বীরগঞ্জে ১৩জন অস্বচ্ছল, প্রতিবন্ধী ও বয়স্কদের মাঝে ভাতা’র বই বিতরণ

উলিপুরে তিস্তার তীর রক্ষা স্পার বাঁধে ধস

 রফিকুল ইসলাম, কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধি \ কুড়িগ্রামের উলিপুরে প্রায় ৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ২ বছর পূর্বে নির্মিত তিস্তা নদীর বাম তীর রক্ষায় একটি স্পার বাঁধ (গ্রোয়েন)ধসে যাচ্ছে। গ্রোয়েনটি রক্ষা করতে পাউবো কর্তৃপক্ষ জিও টেক্সটাইল ব্যাগে বালু ভর্তি করে ভাঙ্গন রোধের চেষ্টা করছেন। ফলে ১টি মসজিদ ও ইউপি কার্যালয়সহ ৫ টি গ্রাম কয়েক হাজার পরিবার ভাঙ্গনের হুমকির মুখে পড়েছে। অভিযোগ উঠেছে, স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করায় বাঁধের নীচের মাটি সরে যাওয়ায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। জানা গেছে, ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে প্রায় ৫ কোটি ৭১ লাখ টাকা ব্যয়ে উপজেলার বজরা ইউনিয়নের তিস্তা নদীর বাম তীর রক্ষায় বন্যা নিয়ন্ত্রন স্পার বাঁধ (গ্রোয়েন) নির্মাণ করা হয়। গত ২০১৬ সালের নভেম্বর মাসে নির্মাণ কাজ শুরু হলে তা শেষ হয় ২০১৭ সালের জুন মাসে। ধীরে ধীরে বাঁধটি ভ্রমন পিপাসু মানুষের বিনোদন কেন্দ্রে পরিণত হয়। স্থানীয় মানুষজনের অভিযোগ একটি প্রভাবশালী মহল স্পারবাঁধের কাছে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করায় তলদেশের মাটি সরে গিয়ে বাঁধটি হুমকির মুখে পড়ে। স¤প্রতি তিস্তা নদীর পানি আকস্মিক বৃদ্ধি পেলে গত মঙ্গলবার বাঁধটি বিশাল অংশ ধসে পড়ে। ফলে ১ টি মসজিদ ও বজরা ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়সহ চর বজরা, খামার বজরা, পূর্ব বজরা, চাঁদনি বজরা, কাশিম বাজার গ্রাম ভাঙ্গনের হুমকির মুখে পড়ে। ঠিকাদার সাইদুল ইসলাম বলেন, গ্রোয়েনটি রক্ষায় ৫ হাজার প্লাষ্টিক বস্তা ও ৫ হাজার জিও টেক্সটাইল ব্যাগে বালু ভর্তি করে ডাম্পিং করা হবে। এখন পর্যন্ত ৭ শত ব্যাগ ডাম্পিং করা হয়েছে।
বাঁধের দায়িত্বপ্রাপ্ত পাউবো’র উপ-সহকারী প্রকৌশলী নজরুল ইসলাম বলেন, তিস্তা নদীর ডান তীরে অন্য একটি প্রকল্পের কাজ শুরু হওয়ায় পানি গতিপথ পরিবর্তন করায় গ্রোয়েনটি ভাঙ্গনের মুখে পড়ে যায়। হঠাৎ করে ভাঙ্গন শুরু হওয়ায় আপদকালীন প্রকল্পের মাধ্যমে ভাঙ্গন রক্ষায় ২৫০ কেজি ওজনের জিও টেক্সটাইল ব্যাগে বালু ভর্তি করে ডাম্পিং করা হচ্ছে।
কুড়িগ্রাম পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম বলেন, ভাঙ্গন শুরু হওয়ার সাথে সাথেই গ্রোয়েনটি রক্ষায় প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। দ্রæত বাঁধটির ধস রোধ করা হবে। বজরা ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব রেজাউল করিম আমিন বলেন, কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোড কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব অবহেলার কারণে তীর রক্ষা স্পার বাঁধে ধস দেখা দিয়েছে। যা এখনই প্রতিরোধ না করা হলে বজরা ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ ক্ষতির সম্মুখীন হবে।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ